ত্রৈমাসিক হিসাবে গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকায় কি থাকা উচিৎ কি থাকা উচিৎ নয় – NariBangla

ত্রৈমাসিক হিসাবে গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকায় কি থাকা উচিৎ কি থাকা উচিৎ নয়

Comment

Health

গর্ভবতীকালীন সময়টি একটি নারীর জন্য অত্যন্ত জটিল একটি সময়। কারন এই সময় নারীকে একদিকে অনাগত সন্তনের কথা চিন্তা করে চলতে হয়, অন্যদিকে নিজের কথাও চিন্তা করতে হয়। আর খাবার এই সময়  গর্ভবতী নারীর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। তাই আজকে আমরা আলোচনার বিষয়, ত্রৈমাসিক হিসাবে গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকায় কি থাকা উচিৎ কি থাকা উচিৎ নয়।

জরায়ু বড় হওয়ার কারন কি, সমাধান কি

গর্ভবতীকালীন সময় একটি নারী চিন্তিত থাকেন কি খাবেন আর কি খাবেন না এ নিয়ে। তাদের চিন্তার কারন এক দিকে কোন খাবার বাচ্চার কোন ক্ষতি করবে না, বাচ্চাকি যথেষ্ট পুষ্টি দিবে। আবার অন্যদিকে তাদের চিন্তা করতে হয় বেশী খাবারের কারনে তিনি জেন মুটিয়ে না যান। তাই চলুন গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকা নিয়ে জটিল হিসাব নিকাশটা আজকে করা যাক।

ব্রণ ও মুখে ক্ষত গর্ত এবং দাগ

চলুন প্রথমে জেনে নেই গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকা নির্বাচনে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখা উচিৎ-

  • গর্ভের সন্তানের সঠিক বৃদ্ধি
  • গর্ভবতী মায়ের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা
  • সঠিক প্রসবের জন্য মায়ের সঠিক শক্তি বৃদ্ধি করা
  • মায়ের পর্যাপ্ত পরিমান বুকের দুধ সরবারহ করা

গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকায় যা থাকা উচিৎ

আমরা জেনে নিলাম একটু সঠিক খাদ্য তালিকা কেন একজন গর্ভবতীর জানা ও মানা জরুরী। এবার চলুন জেনে নেই গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকায় কি কি থাকা জরুরী।

গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকায় যা থাকা উচিৎ

  • আমিষ বা প্রোটিন
  • চর্বি বা ফ্যাট
  • শর্করা বা কারবোহাইড্রেড
  • ক্যালসিয়াম
  • ভিটামিন
  • লোহ ও ফলিক এসিড
  • ক্যালরি

এবার চলুন কি কি খাবার আপনাকে এই উপাদানগুলো প্রদান করবে ।

গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকা-

  • ভাত/রুটি / পাউরুটি
  • ডিম/ দুধ
  • সবজি
  • মুড়ি / বিস্কিট / কেক
  • মাছ / মাংস
  • নুডুলস / ছোলামুড়ি/ সেমাই
  • ডাল

মেয়েদের স্তন বড় হওয়ার কারন ও সমাধান

এবার চলুন ত্রৈমাসিক হিসাবে একজন গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকা কখন কি থাকা উচিৎ।

ত্রৈমাসিক হিসাবে একজন গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকা – প্রথম তিন মাস

সকালের নাস্তাঃ সকালের নাস্তায় ২ পিস রুটি বা পাওরুটি খাবেন। সাথে খাবেন ১টি ডিম বা ১০ গ্রাম ডাল। আর সবজি খাবেন ইচ্ছে মত।

সকাল ১০/১১ টাঃ সকালের নাস্তা আর দুপুরের খাবারের মাঝে সকাল ১০-১১ টার দিকে মুড়ি/ বিস্কিট/ কেক ইত্যাদি খেতে পারেন। তবে খাবেন ৬০ গ্রামের মত পরমানে। সাথে ফল খেতে পারেন।

দুপুরের খাবারঃ দুপুরে ২ কাপ পরিমান ভাত খাবেন, সাথে ৬০ গ্রাম পরিমান মাছ অথবা মাংস। মাঝারি ঘন ডাল খাবেন আধা কাপ। সবজি খেতে পারেন ইচ্ছে মত।

বিকেলের নাস্তাঃ বিকেলে খাবেন সেমাই/ ছোলামুড়ি অথবা নুডুলস ৩০ গ্রাম পরিমানে।

রাতের খাবারঃ দুপুরের খাবারের পরিমান রাতে খাবেন। শোয়ার আগে এক কাপ দুধ খাবেন।

মাসিক বন্ধ হওয়ার কারণ?

ত্রৈমাসিক হিসাবে একজন গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকা – দ্বিতীয় তিন মাস

সকালের নাস্তাঃ সকালের নাস্তায় ৩ পিস রুটি বা পাওরুটি খাবেন। সাথে খাবেন ১টি ডিম বা ২ টুকরো মাংস। আর সবজি খাবেন ইচ্ছে মত।

সকাল ১০/১১ টাঃ এ সময় ১ কাপ দুধ খাবেন। ৩০ গ্রাম পরিমানে মুড়ি/ বিস্কিট/ কেক ইত্যাদি খাবেন। সাথে ফল খেতে পারেন।

দুপুরের খাবারঃ দুপুরে ২.৫ কাপ পরিমান ভাত খাবেন, সাথে ৮০ গ্রাম পরিমান মাছ অথবা মাংস। মাঝারি ঘন ডাল খাবেন এক কাপ। সবজি খেতে পারেন ইচ্ছে মত।

বিকেলের নাস্তাঃ বিকেলে খাবেন সেমাই/ ছোলামুড়ি অথবা নুডুলস ৪০ গ্রাম পরিমানে।

রাতের খাবারঃ দুপুরের খাবারের পরিমান রাতে খাবেন। শোয়ার আগে এক কাপ দুধ খাবেন।

নারীর মুখে অবাঞ্চিত লোম কেন হয় এবং প্রতিকার কি

ত্রৈমাসিক হিসাবে একজন গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকা – শেষ তিন মাস

সকালের নাস্তাঃ সকালের নাস্তায় ৪ পিস রুটি বা পাওরুটি খাবেন। সাথে খাবেন ১টি ডিম। আর সবজি খাবেন ইচ্ছে মত।

সকাল ১০/১১ টাঃ এ সময় ১ কাপ দুধ খাবেন। ৬০ গ্রাম পরিমানে যে কোন নাস্তা খাবেন। সাথে ফল খেতে পারেন।

দুপুরের খাবারঃ দুপুরে ৩ কাপ পরিমান ভাত খাবেন, সাথে ১০০ গ্রাম পরিমান মাছ অথবা মাংস। ঘন ডাল খাবেন এক কাপ। সবজি খেতে পারেন ইচ্ছে মত।

বিকেলের নাস্তাঃ ৬০ গ্রাম দুধ বা দুধের তৈরি নাস্তা বা ডালের তৈরি নাস্তা খাবেন।

রাতের খাবারঃ দুপুরের খাবারের পরিমান রাতে খাবেন। শোয়ার আগে এক কাপ দুধ খাবেন।

এখানে কিছু রুটিন খাবারের কথা বলা হয়েছে। তবে আপনার জন্য এ খাবারে কিছুটা ভিন্নতা থাকতে পারে আপনার শাররিক অবস্থা, বয়স ইত্যাদির কারনে। তাই বিশেষক্ষের উপদেশ গ্রহন করুন।

গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকায় যা থাকা উচিৎ নয়ঃ

  • কাঁচা ডিম
  • অর্ধ সিদ্ধ মাংস
  • অপাস্তরিত দুধ
  • কলিজা বা কলিজার তৈরি খাবার
  • ক্যাফেইন
  • সামদ্রিক মাছ
  • কাঁচা বা আধা পাকা পেপে

পরিশেষে অবশ্যই বিষেশজ্ঞের পরামর্শ অনুযায়ি আপনার জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্য তালিকা প্রস্তুত করে নিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

//GA Code Start //GA code end